বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স গ্রাউন্ডেড করছে যুক্তরাষ্ট্র

ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের ‘বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স ৮’ প্লেন দুর্ঘটনায় ১৫৭ নিহত এবং প্রায় পাঁচ মাস আগের ইন্দোনেশীয় লায়ন এয়ারের ‘বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স-৮’ বিধ্বস্ত হওয়ার জেরে এই মডেলের সব প্লেন সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শীর্ষস্থানীয় মার্কিন প্রস্তুতকারী কোম্পানি বোয়িং।

বোয়িং বলছে, বিশ্বে বিভিন্ন এয়ারলাইন্সের বহরে নতুন এ মডেলের ৩৭১টি প্লেন রয়েছে। যার মধ্যে ইতোমধ্যেই বহু দেশে এ প্লেন গ্রাউন্ড করা হয়েছে। বাকিগুলোও করা হবে। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ‘৭৩৭ ম্যাক্স-৮’ সব প্লেন সরিয়ে নেওয়া হবে।

তথ্য উন্মোচনের পর বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও। তিনি বলেছেন, বিশ্বব্যাপী ‘বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স-৮’ মডেলের সব প্লেন গ্রাউন্ড করার বিষয়টি দ্রুত কার্যকর করা হোক। যদিও মঙ্গলবার (১২ মার্চ) যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা দিয়েছিল, নিজেদের ‘বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স-৮’ প্লেন গ্রাউন্ড করবে না তারা।

ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের প্লেন বিধ্বস্ত হয়ে ১৫৭ আরোহীর সবাই নিহত হওয়ার জেরে বিশ্বব্যাপী সমালোচনার মুখে বোয়িং। তাদের এ মডেলের প্লেন ইতোমধ্যেই বিশ্বের বহু দেশে গ্রাউন্ড করা হয়ে গেছে। তবুও এ প্লেনগুলো চালনার কথা বলেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল অ্যাভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) বিধ্বস্ত ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের প্লেনের ধ্বংসাবশেষ থেকে দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে যে তথ্য বের করেছে, তার মিল রয়েছে গত বছরের অক্টোবরে লায়ন এয়ারের ঘটনার সঙ্গে। এছাড়া কানাডার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও বলছেন, দুর্ঘটনায় পড়া দু’টি প্লেনের জরুরি অবতরণের আদেশ একই রকম ছিল।

আর তখনই এ নিয়ে ট্রাম্প বলছেন, নিরাপত্তা বিবেচনায় এ মডলের সব প্লেনের চলাচল বন্ধ থাকবে। পরবর্তী নোটিস না হওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বহাল।

রোববার (১০ মার্চ) সকালে ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবার বোলে বিমানবন্দর থেকে ফ্লাইট ‘ইটি৩০২’ উড্ডয়ন করার ছয় মিনিটের মধ্যেই ৮টা ৪৪ মিনিটের দিকে বিধ্বস্ত হয়। এতে ফ্লাইটের ১৫৭ আরোহী নিহত হন। এছাড়া ইন্দোনেশিয়ায় বিধ্বস্ত লায়ন এয়ারের প্লেনটিও একই মডেলের। ওই দুর্ঘটনায়ও ১৮৯ আরোহীর সবাই মারা যান।

share this news:
WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com