বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক বিরাজ করছে। আমাদের দুটি দেশের মধ্যকার সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। মূল্যবোধ, ধর্ম, সাংস্কৃতিক সম্পর্ক এবং অনেক অভিন্ন বিষয়ের ভিত্তিতে এ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর সম্মানে সোমবার ব্রুনাইয়ের সরকারি বাসভবন ইসতানা নূরুল ইমানে রয়েল ব্যাঙ্কুয়েট হলে সুলতান আলহাজ হাসানাল বলকিয়ার দেওয়া এক ভোজসভায় এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, এই মহান দেশটি সফর করা তাঁর জন্য ছিল একটি বিশাল উপহার। এ কথা সত্য, এটি একটি শান্তির আবাসভূমি। যেখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং শত শত বছরের ঐতিহ্য আধুনিকতাকেও হার মানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী ১৯৯০ দশকের গোড়ার দিকে তাঁর ব্রুনাই সফরের কথা স্মরণ করেন। সে সময়ে তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানা ব্রুনাইয়ে তাঁর পরিবারের সঙ্গে থাকতেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পরপরই দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ট করতে তিনি ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশের আবাসিক মিশন পুনরায় চালু করার উদ্যোগ নেন। তিনি ১৯৯৯ সালে ঢাকায় আবাসিক মিশন করায় ব্রুনাইয়ের সুলতানকে ধন্যবাদ জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। তিনি বলেন, ব্যাপক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড  এবং সামাজিক সেক্টরে ক্রমবর্ধমান বিনিয়োগ আমাদেরকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশের মর্যাদা লাভের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুটি দেশের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে এক সঙ্গে কাজ করতে উভয় দেশই সম্মত হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা সহযোগিতার বিভিন্ন ক্ষেত্র চিহ্নিত করেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, তিনি ব্যবসায়িক ফোরামে যোগ দেওয়ার বিষয়টিতে অধিক গুরুত্ব দিচ্ছেন। দুই দেশের ব্যবসায়ী নেতারা বৈঠকে সহযোগিতার গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করতে আলোচনা করবেন।

প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাইয়ের সুলতান আলহাজ হাসানাল বোলকিয়াকে তার ম্যাজেস্টি দুলি রাজা ইসতেরিকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশ সফরে আসার আমন্ত্রণ জানান।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *