বিকেলে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ

শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথম ম্যাচে হারানোর পর ত্রিদেশীয় সিরিজে এবার বাংলাদেশ দলের লক্ষ্য স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড। জয়ের ধারা অব্যাহত রেখে টুর্নামেন্টের তৃতীয় ও নিজেদের ম্যাচে আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে সিরিজের ফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়ে যেতে চাই টাইগাররা।

এদিকে সিরিজে টিকে থাকতে বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিকেলে ডাবলিনের মালাহিডে অনুষ্ঠিতব্য ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় যে কেন মূল্যে জয় চায় আইরিশরা।

সিরিজ শুরুর আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে আয়ারল্যান্ড এ দলের কাছে বাংলাদেশের পরাজয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। তবে ত্রিদেদশীয় সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দেখা গেছে অন্য এক বাংলাদেশকে।

শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৯ উইকেটের বিনিয়ময়ে ২৬১ রানে আটকে রাখার পর ৮ উইকেটের সহজ জয় তুলে নিয়েছে টাইগাররা।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে ওপেনিং জুটিতে বিশ্ব রেকর্ড শাই হোপ এবং জন ক্যাম্পবেলের ৩৬৫ রানের সুবাদে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ উইকেটে ৩৮১ রানের বড় স্কোর গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। জবাবে ব্যাট হাতে ভাল করাতে না পরায় ১৮৬ রানে হার মানে আয়ারল্যান্ড।

পিঠে ইনজুরির কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচে ক্যাম্পবেল খেলতে না পারলেও আয়ারল্যান্ড ম্যাচে ১৭০ রানের পর টাইগারদের বিপক্ষে ১০৯ রানে দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন হোপ।

তবে ওপেনার তামিম আকবাল(৮০), সৌম্য সরকার (৭৩) এবং সাকিব আল হাসানের (অপরাজিত ৬১) হাফ সেঞ্চুরির সুবাদে বাংলাদেশ ৪৫ ওভারে ২ উইকেটে ২৬৪ রান করলে বৃথা যায় হোপের টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরী।

তামিম ও সৌম্য ওপেনিং জুটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ১৪৪ রান যোগ করার পর দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তামিম-সাকিবের ৫২ রান দলের জয়কে তরান্বিত করে।

এরপর মুশফিকুর রহিম দ্রুত গতিতে ২৫ বলে অপরাজিত ৩২ রান করলে সহজেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় টাইগাররা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বোলিং পারফরমেন্সের ধরনে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষেও স্পষ্টতই ফেবারিট বাংলাদেশ এবং আরেকটি জয় টাইগারদের ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে রাখবে।

তবে কোন প্রকার আত্মতুষ্টিতে না ভুগে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেছেন, নিজেদের সেরা খেলাটা অব্যাহত রাখতে হবে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ জয়ের পর মাশরাফি বলেন, সিরিজে এখনো সবার সমান সুযোগ আছে। ফাইনালে যেতে আমাদের ভাল ক্রিকেট খেলতে হবে। সেটাই আমাদের লক্ষ্য।

তবে জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করতে পারায় খুশি তিনি।

মাশরাফি বলেন, অবশ্যই জয় দিয়ে শুরু করাটা সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। আমি মনে করি অনুশীলন ম্যাচে পরাজিত হওয়ার পর আমাদের শুরুটা ভাল হয়েছে। ছেলেরা পরের ম্যাচের জন্য অধীর আগ্রহে আছে।

মাশরাফির খুশির অন্য একটা কারণ হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজেকে ২৬১ রানে আটকে রাখতে পারা। কেননা ইনিংসের মাঝামাঝি সময়ও মনে হয়েছিল ক্যারিবিয়রা তিনশ’র বেশি রান করবে।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *