গ্রিন কার্ড নিয়ে আসছে সৌদি আরব

সৌদি আরবে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য সেদেশের সরকার গ্রিন কার্ড ব্যবস্থা চালু করতে যাচ্ছে। ধনী ও দক্ষ বিদেশি পেশাজীবীদের সরাসরি স্থায়ী বসবাসের অনুমতি দিতে এই গ্রিন কার্ড চালু করা হবে। মঙ্গলবার (১৪ মে) সে দেশের মন্ত্রিসভায় প্রথমবারের মতো আবাসিকতা সংক্রান্ত এই পরিকল্পনার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

‘বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত ইকামা’ নামের এই পরিকল্পনার আওতায় বসবাসের অনুমতি পাওয়া প্রবাসীরা দেশটিতে সম্পত্তি কেনার সুযোগ পাবেন। কোনও সৌদি স্পন্সর ছাড়াই পরিবারের সাথে দেশটিতে বসবাস করতে পারবেন তারা।

সৌদিতে বর্তমানে পৃষ্ঠপোষকভিত্তিক যে ব্যবস্থা চালু আছে, তাতে সেখানে ওয়ার্ক পারমিট নিয়ে বসবাস করতে একজন সৌদি চাকরিদাতার স্পন্সরশিপের অপরিহার্যতা রয়েছে। এ ব্যবস্থার আওতায় প্রায় এক কোটি বিদেশি সৌদি আরবে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন। প্রায় তিন বছর আগে সৌদি ‘গ্রিন কার্ড’ নামে নতুন এক আবাসিকতার পরিকল্পনার কথা প্রথম উল্লেখ করেন দেশটির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। উচ্চাকাঙ্ক্ষী ভিশন ২০৩০ পরিকল্পনার আওতায় দেশটির বাজার উন্মুক্তকরণ ও অর্থনীতি বহুমূখীকরণের অংশ হিসেবে ‘বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত ইকামা’ নামের এই আবাসিকতার অনুমোদন দেওয়ার কথা বলা হয়।

বুধবার নতুন এই আবাসিকতার পরিকল্পনার অনুমোদন দেওয়ার ঘোষণা দেয় সৌদি আরব। নতুন এই ব্যবস্থায় সৌদি আরবে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে সেখানকার কোনও নাগরিকের পৃষ্ঠপোষকতা কিংবা দেশটিতে কর্মজীবী হওয়ার আবশ্যিকতা থাকবে না। উচ্চ দক্ষতার প্রবাসী কোনও পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়াই সৌদি আরবে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি পাবেন। বিদেশি ধনী ব্যক্তিরাও মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে সেখানে ব্যবসা করা এবং সম্পত্তির মালিক হওয়ারও সুযোগ পাবেন।

এখনও পরিকল্পনার বিস্তারিত প্রকাশ করা হয়নি। তবে সে দেশের কর্মকর্তারা আশা করছেন, নতুন ইকামা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে আরও বেশি সংখ্যক বিনিয়োগকারী ও উদ্যোক্তাকে সৌদি আরবের প্রতি আকৃষ্ট করা সম্ভব হবে। এতে প্রাইভেট সেক্টরে উন্নয়নের গতি ত্বরান্বিত হবে। বাড়বে সৌদি নাগরিকদের কর্মসংস্থানের সুযোগ।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *