কাতারকে হরিয়ে কোয়ার্টার নিশ্চিত করল আর্জেন্টিনা

সমীকরণ সহজ ছিলো না। শুধু নিজেদের ম্যাচের জয় পেলেই হতো না, অপেক্ষা করতে হতো প্যারাগুয়ের পরাজয়ের। মিলেছে এই দুই সমীকরণই। যে কারণে ‘বি’ গ্রুপ থেকে রানার আপ হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট পেয়ে গেছে আর্জেন্টিনা।

রোববার রাতে একই সময়ে হয়েছে ‘বি’ গ্রুপের শেষ দুই ম্যাচ। যেখানে আর্জেন্টিনা হারিয়েছে কাতারকে, প্যারাগুয়েকে হারিয়েছে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন কলম্বিয়া। কাতারের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার জয় ২-০ গোলে, কলম্বিয়া জিতেছে ১-০ গোলে।

গ্রেমিও এরেনায় কাতারের বিপক্ষে ম্যাচের শুরুতেই লিড নেয় আর্জেন্টিনা। মাত্র চতুর্থ মিনিটে কাতারের রক্ষণভাগের ভুলের সুযোগ কাজে লাগান লাউতারো মার্টিনেজ। ডি-বক্সের কাছে তাদের ভুল পাস ধরে কাছের পোস্ট দিয়ে বল জালে প্রবেশ করান মার্টিনেজ।

লিড নিয়ে সন্তুষ্ট হওয়ার বদলে আরও বেশি ক্ষুধার্ত হয়ে পড়ে আর্জেন্টাইনরা। একের পর এক আক্রমণে ব্যতিব্যস্ত করে তোলে কাতারের রক্ষণভাগকে। ১৫ মিনিটের মাথায় লো সেলসোর দারুণ নৈপুণ্যে দ্বিতীয় গোল পেয়েই যাচ্ছিল আলবিসেলেস্তেরা। তবে তা এক ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে চলে যায় কর্নারের দিকে।

এর মিনিট সাতেক পর আরও সহজ সুযোগ পায় আর্জেন্টিনা। এবার প্রিয় বন্ধু সার্জিও আগুয়েরোর উদ্দেশ্যে বল বাড়ান লিওনেল মেসি। কিন্তু অনেকটা ফাঁকায় থেকেও দূরের পোস্ট দিয়ে বল বাইরে মেরে দেন আগুয়েরো। যে কারণে লিড পাওয়া হয়নি লিওনেল স্কালোনির শিষ্যদের।

প্রথমার্ধ শেষের আগ দিয়ে ম্যাচের ৩৯ মিনিটেও কাতারের রক্ষণকে জমাটবদ্ধ করেও গোলের দেখা পায়নি আর্জেন্টিনা। লাউতারো মার্টিনেজ ও সার্জিও আগুয়েরো ভিন্ন ভিন্ন প্রচেষ্টা করেও জালে প্রবেশ করাতে পারেননি বল।

উল্টো মিনিটখানেক পর দুর্দান্ত এক আক্রমণ করে কাতার। অল্পের জন্য সমতায় বসতে পারেনি তারা। বিরতিতে যাওয়ার আগে লো সেলসো এবং হুলেন ফয়েথকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি। তবু এক গোলের লিড নিয়েই বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরেও কাতারের রক্ষণের পরীক্ষা নেয়া থামাননি মেসি-আগুয়েরোরা। ৬১তম মিনিটে পরপর দুইটি কর্নার থেকে আর্জেন্টিনার জোরালো আক্রমণ প্রতিহত করে দেন কাতারের গোলরক্ষক। আগুয়েরোর একটি শট একদম গোলমুখ থেকেই ফিরিয়ে দেন তিনি।

৭৩ মিনিটের মাথায় সহজ সুযোগ আসে মেসির সামনে। গোলমুখের ১০ গজ দূরে ফাঁকা জায়গা পেয়ে যান তিনি। সে সুযোগ লাউতারো মার্টিনেজ তাকে বল বাড়িয়ে দেন। সেটি ধরে গোলমুখে মারেন মেসি। কিন্তু তা উড়ে যায় বারের অনেক ওপর দিয়ে। যা মেসির স্বাভাবিক খেলার সঙ্গে ঠিক মানানসই নয়।

মেসি না পারলেও দলের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করেন তারই বন্ধু আগুয়েরো। পাওলো দিবালার কাছ থেকে বল পেয়ে প্রায় একক নৈপুণ্যে কাতারের রক্ষণে ঢুকে পড়েন আগুয়েরো। পরে ডানপায়ের নিখুঁত শটে পরাস্ত করেন কাতারের গোলরক্ষককে।

দুই গোলের লিড পেয়ে ম্যাচের বাকি সময় খুব একটা তৎপর দেখা যায়নি কোপা আমেরিকার ইতিহাসের অন্যতম সফল দলটিকে। উল্টো রেফারির সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েছিলেন পিজেল্লা। তবে সে দফায় কোনো ক্ষতি হয়নি। রেফারির শেষ বাঁশি বাজার সঙ্গে সঙ্গে স্বস্তির দেখা মেলে আর্জেন্টিনার ডাগআউটে।

আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে কলম্বিয়ার কাছে পরাজয় এবং পরে প্যারাগুয়ের সঙ্গে ড্র করায় শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল আর্জেন্টিনার কোয়ার্টারের টিকিট। তবে আজ কাতারকে হারিয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে, বি গ্রুপ থেকে শেষ আটে পৌঁছে গেলেন মেসি-আগুয়েরোরা।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *