রাজধানীতে চার ট্রাভেলস এজেন্সিকে জরিমানা ৫০ লাখ টাকা

হজের টিকিট মজুদ রাখার অভিযোগে রাজধানী ঢাকার নয়াপল্টনে অভিযান চালিয়ে ৪ ট্রাভেলস এজেন্সিকে ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, সরকারের সিদ্ধান্ত অনুসারে একটি ট্রাভেলস এজেন্সি এয়ারলাইন্স থেকে সর্বোচ্চ ৩০০ টিকিট বরাদ্দ পাওয়ার কথা। কিন্তু নয়াপল্টনের কাজী টাওয়ারের সানশাইন এক্সপ্রেস ট্রাভেলস ইন কর্পোরেশনে অভিযান চালিয়ে দেখা যায়, সৌদি এয়ারলাইন্সের ১৩ হাজার ২০টি টিকিট বরাদ্দ নিয়ে সিন্ডিকেট করে বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে। সানশাইন ট্রাভেলসকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া পল্টনের হাসেম এয়ার ইন্টারন্যাশনালে অভিযান চালিয়ে চার হাজার ৮০০টি টিকিট, চ্যালেঞ্জার ট্রাভেলস এক হাজার ৬০০ টিকিট ও গোল্ডেন বেঙ্গল তিন হাজার ৭০৮টি টিকিট বরাদ্দ নিয়েছে বলে তথ্য পাওয়ায় এ তিন ট্রাভেলসের প্রত্যেকটিকে ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম জানান, এ বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ২৭ হাজার হজযাত্রী হজে যাচ্ছেন। সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এসব হজযাত্রীর ৫০ শতাংশ বাংলাদেশ বিমানে এবং বাকি ৫০ শতাংশ হজযাত্রী বহন করবে সৌদি এয়ারলাইন্স।

সৌদি এয়ারলাইন্সের কিছু লোকের যোগসাজশে এ রকম কিছু ট্রাভেলস এজেন্সি অতিরিক্ত টিকিট বরাদ্দ নিয়েছে। একই সঙ্গে তারা সরকারের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে প্রতি টিকিটে গড়ে ২৫ হাজার টাকা বেশি নিয়েছে। বরাদ্দকৃত ৩০০ টিকিটের জায়গায় ১৩ হাজারের বেশি টিকিট কেন?

এমন প্রশ্নের জবাবে সানশাইন ট্রাভেলসের প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ আনিছুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, হজের আগে টিকিট বেশি বিক্রির ওপর ভিত্তি করে (সেলস পারফরম্যান্স) সৌদি এয়ারলাইন্স তাদের টিকিট বরাদ্দ দিয়েছে। তিনি বলেন, আমরা জোর করে বা সিন্ডিকেট করে টিকিট বরাদ্দ নেইনি। সৌদি এয়ারলাইন্স যারা বেশি টিকিট সেল করে তাদের বেশি টিকিট বরাদ্দ দিয়ে থাকে।

তবে তারা সরকারের নির্ধারিত মূল্যের বেশি দামে টিকিট বিক্রি করেন না বলে দাবি করেছেন। তবে সারওয়ার আলম বলেন, যারা অতিরিক্ত মূল্যে টিকিট কিনেছেন তারা যদি আমাদের কাছে ডকুমেন্টসসহ প্রমাণ দিতে পারেন তাহলে তারা টাকা ফিরে পাবেন।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *