কোপা আমেরিকার সেমিতে মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শুক্রবার রাতে (২৯জুন) কোপা আমেরিকায় কোয়ার্টার ফাইনালে ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে ২-০ গোলে জিতেছে লিওনেল স্কালোনির শিষ্যরা।। এ জয়ে কোপা আমেরিকা ২০১৯-এর সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে আর্জেনটিনা। দুই অর্ধে একটি করে গোল করেন ফরোয়ার্ড লাউতারো মার্তিনেজ ও মিডফিল্ডার জিওভান্নি লো সেলসো।

এ নিয়ে কোপা আমেরিকায় ছয়বারের দেখায় প্রতিবারই ভেনেজুয়েলাকে হারানোর কৃতিত্ব দেখাল আলবিলেস্তেরা। আর সেমিতে তাদের প্রতিপক্ষ  প্রতিদ্বন্দ্বি ব্রাজিল।

ম্যাচের শুরুতে বেশ এগিয়েই ছিল আর্জেন্টিনা। বল দখল, পাস কিংবা শট নেয়া-সব ক্ষেত্রেই এগিয়ে থাকার ফলটা পেতে দেরি হয়নি আলবিসেলেস্তেদের। ১০ মিনিটের মাথায়ই প্রথম গোল পেয়ে যায় তারা।

দশম মিনিটে দুটি কর্নার পায় আজেন্টিনা। প্রথমটিতে লিওনেল মেসির ক্রস থেকে সার্জিও আগুয়েরো গোল করতে পারেননি। তবে পরের কর্নারে আগুয়েরোর ক্রস বক্সের মধ্যে পেয়ে ডান পায়ের শটে ভেনিজুয়েলার গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন লুতারো মার্টিনেজ (১-০)।

গোল খেয়ে যেন হুঁশ ফেরে ভেনেজুয়েলার। এরপর তারা বেশ চড়াও হয়ে খেলেছে। বল দখল, পাসিংয়ে নিজেদের প্রভাব দেখিয়েছে। তবে আর্জেন্টাইন রক্ষণ ভেদ করে শট নিতে পারেনি সেভাবে।

আর্জেন্টিনা বরং বেশ কয়েকটি সুযোগ তৈরি করেছিল। তবে প্রথমার্ধে আর গোলের দেখা পায়নি লিওনেল মেসির দল। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই যায় বিরতিতে।

গোল শোধের জন্য দ্বিতীয়ার্ধেও চেষ্টা করেছে ভেনেজুয়েলা। তবে ৭৪ মিনিটের মাথায় আরও এক গোল হজম করে বসে তারা। সার্জিও আগুয়েরোর শট প্রথমে ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন ভেনেজুয়েলা গোলরক্ষক। কিন্তু তারই ভুলে জালে বল জড়িয়ে দেন জিওভানি লো সেলসো (২-০)। শেষ পর্যন্ত ওই ২-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে মেসিরা।

ফুটবল বিশ্বের অন্যতম দুই পরাশক্তি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। কদাচিৎ দেখা হয় তাদের। বড় কোনো আসরে তেমন সাক্ষাত-ই হয় না। বিশ্বকাপ ইতিহাসে দু’দলের দেখা হয়েছে মাত্র চারবার। শেষবার ১৯৯০ সালে। আর কোপা আমেরিকা লড়াইয়ে তাদের শেষ সাক্ষাৎ হয়েছে ২০০৭ সালে। সেবার আর্জেন্টিনাকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে শিরোপা জেতে ব্রাজিল।

মাঝখানে প্রীতি ম্যাচে দেখা হয়েছে তাদের বহুবার। কিন্তু কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের লড়াই যে ভিন্ন কিছু। তবে ১২ বছর পর ২০১৯ কোপা আমেরিকাতে দেখা হচ্ছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *