প্রবাসীদের জন্য চালু হচ্ছে ‘দূতাবাস’ অ্যাপস

বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশিদের সার্বক্ষণিক সহায়তা ও পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য ‘দূতাবাস’ নামে একটি মোবাইল অ্যাপস চালু হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, আমাদের দেশের ১ কোটি ২০ লাখ মানুষ বিদেশে থাকেন। এই জনসংখ্যার জন্য ২৪ ঘণ্টা সহযোগিতা করতে ‘দূতাবাস’ নামে একটি মোবাইল অ্যাপস আমরা চালু করতে যাচ্ছি। এটা চালু করার পর প্রবাসীরা ঘরে বসেই দেশে পরিবারের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ করতে পারবেন ও সহযোগিতা পাবেন।

শনিবার (২৯ জুন) জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনা অংশ নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অপর একপ্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশে কর দিতে পারেন এমন ৯২ লাখ লোকের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) আছে। কর দেওয়ার যোগ্য যাদের এনআইডি আছে, তারা সবাই কর দাখিল করলে এবং ব্যবসায়ীরা টিআইন এর মাধ্যমে কর দাখিল করলে কর দেওয়ার হার বাড়বে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ ১০ বছরে দেশের জনগণের উন্নয়ন হয়েছে। তাই এ উন্নয়নকে মানবিক উন্নয়ন বলে আখ্যায়িত করি। সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের কারণে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। এবারের প্রস্তাবিত বাজেটে অবকাঠামো উন্নয়ন, মানবসম্পদ ও প্রচুর কর্মসংস্থানকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। যা দেশের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন। ১০ বছরে সঠিক সিদ্ধান্তের ফলে দারিদ্রের হার ৪০ শতাংশ থেকে ২১ ভাগে নেমে এসেছে। এ বাজেট বাস্তবায়িত হলে দারিদ্রের অভিশাপ থেকে আগামী পাঁচ বছরে দারিদ্রের হার পাঁচ শতাংশে নেমে আসবে।

তিনি বলেন, ‘বাজেট বাস্তবায়ন অত্যন্ত জরুরি। প্রতি বছরই প্রধানমন্ত্রী সরকারি-বেসরকারি কর্মচারীদের সঙ্গে একটা চুক্তি করেন। তবুও কাজ বিলম্বিত হয়। তাই কাজ যেন আরো সহজ হয়, গতিশীল হয়, আমলাতান্ত্রিক জটিলতামুক্ত হয়, সেজন্য ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ এখন সময়ের দাবি।’

কর নেটের আওতা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের লোকসংখ্যার অনুপাতে কর দাতার সংখ্যা অত্যন্ত কম। সেক্ষেত্রে কর দাতার সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য আমার একটি প্রস্তাব হচ্ছে, যাদের এনআইডি আছে, তাদের মধ্যে কর দেওয়ার যোগ্য ৯২ লাখ। এ ৯২ লাখ এনআইডি কার্ডধারী সবাইকে কর দিতে হবে। তারা কর দেবেন কি না সেটা দ্বিতীয় কথা। সব কোম্পানি টিআইএন এর মাধ্যমে কর দেবে। এটা করলে ১১ শতাংশ থেকে অনেক বেশি বাড়বে এবং ঘাটতিও কমবে।’

নিজ মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সাফল্যের এক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। এক কোটি ২০ লাখ লোক বিদেশে থাকেন। তাদের যাতে আরো ভালো সাহায্য করতে পারি, সেজন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একাধিক নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। যেমন- ২৪ ঘণ্টার হটলাইন চালু করেছি, অভিযোগ বাক্স স্থাপন করেছি, ৩৪ ধরনের সেবা দিতে দূতাবাস নামে একটা অ্যাপ চালু করতে যাচ্ছি। যেন বাড়িতে বসে সেবা নিতে পারেন।’

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *