যে কারণে শিশুদের শব্দ করে পড়া জরুরী

যে কারণে শিশুদের শব্দ করে পড়া জরুরী

ডাঃ এম আর খান শিশু হসপিটালের পরিচালক ও শিশু চিকিৎসক ডাঃ এন কে ঘোষ (সুমন) বলেছেন, যা শিখতে হবে সে ব্যাপারে আকর্ষণ অনুভব করতে হবে। মানুষ যখন কোন বিষয়ের ওপর আকর্ষণ দেয় তখন তা সে সহজেই মুখস্থ করে ফেলতে পারে। আমাদের স্মৃতি গঠন বা মেমোরি ফার্নিশনের জন্য মূল ভুমিকা পালন করে মস্তিষ্কের লিম্বিক সিস্টেম। আরো সুস্পষ্ট করে বললে এই সিস্টেমের হিপ্পো কেম্পাস আনন্দের ও কষ্টের অনুভূতির সাথে সম্পর্কিত। আনন্দ ও কষ্টের বিষয়গুলির প্রতি আমাদের এক ধরণের আকর্ষণ কাজ করে। তাই এটা সবসময় আনন্দের বা কষ্টের বিষয়গুলোকে দ্রুত স্মৃতি বা মেমোরিতে রুপান্তর করে ফেলে। ফলে মানুষ কষ্টের স্মৃতি কখনও ভুলে না। সাথে সাথে আনন্দের ঘটনাগুলোও স্থায়ী স্মৃতি বা পারমানেন্ট মেমোরিতে যায়।

তিনি বলেন, কোনকিছু শিখতে চাইলে আগে বিষয়টির ব্যাপারে আকর্ষণ জাগাতে হবে। খেয়াল করে চোখ দিয়ে দেখে পড়তে হবে। মানুষ যা কিছু মনে রাখার চেষ্টা করে তার মধ্যে সবচেয়ে সহজে মনে থাকে ভিজুয়্যাল মেমোরি। অর্থাৎ যা মানুষ চোখে দেখে মনে রাখে এবং ভালো উচ্চারণ ও মনে রাখার জন্য শব্দ করে পড়ার বিশেষ প্রয়োজন আছে। কারণ তাতে পড়ার কনসেনট্রেশন বেশি আসে। বাইরের কোন সমস্যা তাকে বিরক্ত করতে পারে না এবং মনের একাগ্রতা বাড়ে। আমরা, শিক্ষক ও অভিভাবকরা হয়তো এ বিষয়টি এখনও গুরুত্ব দিয়ে ভাবিনা। এখনই সময় এই বিষয়গুলো নিয়ে সবাইকে সতর্ক হওয়ার।অন্যথায় ভবিষ্যতে এর খেসারত দিতে হবে।

শব্দ করে পড়লে যে উপকারগুলো হয়-

✅সহজেই মুখস্থ রাখা
✅সঠিক উচ্চারণ
✅মানসিক বিকাশ
✅শারীরিক সুস্থ্যতা
✅পরিচালনা করার সক্ষমতা
✅দ্রুত বলার সক্ষমতা
✅মানসিক প্রতিবন্ধকতা দূরীকরণ
✅যেকোনো কিছু মনে রাখার সক্ষমতা
✅স্মরণশক্তি বৃদ্ধি
✅নিজেকে সময় উপযোগী হিসেবে গড়ে তোলার সক্ষমতা
✅মস্তিস্ক অবমুক্ত থাকা
✅আবেগ নিয়ন্ত্রণের সক্ষমতা
✅দৃষ্টিনন্দন বচনভঙ্গী
✅সিদ্বান্ত গ্রহণের সক্ষমতা

আরো জানতে ভিজিট করুন www.readaloudbd.com

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *