বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা আইন ২০১৯ দ্রুত সংশোধন পূর্বক বাস্তবায়ন চাই

৫ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবের আকরাম খা হলে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল ফেডারেশন, ইনস্টিটিউট অব হোমিওপ্যাথিক ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি, হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতি বাংলাদেশ, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাতিক মেডিসিন মেনুফ্যাকর্সাস এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক পরিষদ, বাংলাদেশ ডিএইচএমএস ডক্টরস ফাউন্ডেশন এর যৌথ উদ্যোগে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত দাবি সমূহ পেশ করেন, ডাঃ মোঃ ওমর কাওছার, জেনারেল সেক্রেটারি, বাংলাদেশ ডিএইচএমএস ডক্টরস ফাউন্ডেশন। ডাঃ সিরাজুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, ডাঃ সাখাওয়াত ইসলাম ভূইয়া (খোকন), ডাঃ এনামুল হক, ডাঃ হুমায়ুন কবির, ডাঃ আব্দুল কবির, ডাঃ জলিল মন্ডল, ও ডাঃ কাজী জাহাঙ্গীর প্রমুখ।

বক্তারা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইটে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা আইন ২০১৯ চুড়ান্ত করার জন্য খসড়া দেওয়া হয়েছে তার উপর মতামত ব্যক্ত করেন। নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ হোমিও চিকিৎসা আইন ২০১৯ বাস্তবায়নের পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে অভিনন্দন জানান। ইতিমধ্যে ডিএইচএমএস কোর্সের মান স্নাতক নির্ধারণসহ কিছু আইন পরিবর্তন-সংযোজন করার জন্য অনুরোধ জানান। সংশোধনসহ আইনটি পাশ হলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের বিভিন্ন দাবি বাস্তবায়ন হবে এবং হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা স্বাস্থ্য সেবায় আরও অবদান রাখতে সক্ষম হবে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিতভাবে দাবিগুলো তুলে ধারা হয়। (১) হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা আইন ২০১৯ সংশোধন পূর্বক অনতিবিলম্বে পাশ করা। (২) যোগ্যতার ভিত্তিতে ডিএইচএমএস চিকিৎসকদের সরকারী চাকুরীর ব্যবস্থা করা। (৩) ডিএইচএমএস কোর্সের মান স্নাতক নির্ধারণ করা। (৪) ডিএইচএমএস কলেজ শিক্ষকদের ১০০% বেতন ভাতার ব্যবস্থা করা। (৫) ডিএইচএমএস চিকিৎসকদের পূর্বের ন্যায় বিএইচএমএস কোর্সের ৪র্থ বর্ষে ভর্তির ব্যবস্থা করতে হবে। (৬) হোমিওপ্যাথি বোর্ডের সার্বিক কার্যক্রম তদন্ত করা হউক।

নেতৃবৃন্দ আশা করেন, সরকারের সহযোগিতা ও সমর্থনের মাধ্যমে আমাদের দাবি সমূহ অনতিবিলম্বে বাস্তবায়িত হবে।

share this news:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *